pagead2.googlesyndication.com বাংলাদেশের ষড়ঋতু রচনা

বাংলাদেশের ষড়ঋতু রচনা

Nir
0

বাংলাদেশের ষড়ঋতু - ভূমিকা

বাংলাদেশ একটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত দেশ ষড়ঋতুর দেশ। প্রতিটি ঋতুর নিজস্ব বৈশিষ্ট্য ও সৌন্দর্য রয়েছে। ঋতু পরিবর্তনের সাথে সাথে প্রকৃতিও বদলে যায়। এই বৈচিত্র্য বাংলাদেশের সৌন্দর্যকে আরও বাড়িয়ে তোলে। এই দেশের প্রকৃতি বছরের বিভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন রূপ ধারণ করে। এই রূপবৈচিত্র্যকে বিবেচনা করে বাংলাদেশকে ষড়ঋতুর দেশ বলা হয়। 


বাংলাদেশের ষড়ঋতু রচনা

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - ষড়ঋতুর ধারণা

ষড়ঋতুর ধারণাটি মূলত ভারতীয় উপমহাদেশে প্রচলিত। এই অঞ্চলে বছরে ছয়টি ঋতু পরিবর্তিত হয়। এই ঋতুগুলি হলো:

  • বসন্ত (মার্চ-এপ্রিল)
  • গ্রীষ্ম (মে-জুন)
  • বর্ষা (জুলাই-আগস্ট)
  • শরৎ (সেপ্টেম্বর-অক্টোবর)
  • হেমন্ত (নভেম্বর-ডিসেম্বর)
  • শীত (জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি)

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু - বাংলাদেশে ষড়ঋতুর কারণ

বাংলাদেশের ষড়ঋতুর প্রধান কারণ হলো এর অবস্থান। বাংলাদেশ উত্তর গোলার্ধের ক্রান্তীয় অঞ্চলে অবস্থিত। এই অঞ্চলে সূর্যের আলো বেশি সময় ধরে পড়ে। এছাড়াও, এই অঞ্চলে মৌসুমী বায়ু প্রবাহিত হয়। মৌসুমী বায়ু প্রবাহের কারণে বাংলাদেশ বছরে দুবার বৃষ্টিপাত হয়।

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতুর অন্যান্য কারণগুলি হলো:

  • দেশের ভূপ্রকৃতি
  • দেশের জলবায়ু
  • দেশের উদ্ভিদ ও প্রাণীজগত

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - গ্রীষ্মকাল

গ্রীষ্মকাল বাংলাদেশের সবচেয়ে গরম ঋতু। এই সময়ে আবহাওয়া অত্যন্ত রুক্ষ ও শুষ্ক থাকে। তাপমাত্রা প্রায় ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যেতে পারে। এই সময়ে প্রকৃতিতে শুষ্কতার ছাপ পড়ে। গাছের পাতা ঝরে যায়। মাঠ-ঘাট ধুসর হয়ে ওঠে।

 

গ্রীষ্মকাল বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের ফলের সমাহার দেখা যায়। এই সময়ে আম, জাম, কাঁঠাল, লিচু, তরমুজ, শসা, বেগুন, মরিচ ইত্যাদি ফল পাওয়া যায়। নানার ধরনের মজার মজার ফল পাকে। আর এই কারণেই এই মাসকে বলা হয়ে থাকে মধুমাস। কারণ এই মাসে মধুর মতো মিষ্টি ফল ফলে।

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - বর্ষাকাল

বর্ষাকাল বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান ঋতু। এই সময়ে প্রকৃতিতে বৃষ্টির ধারা বয়ে যায়। যৌবন ফিরে পায় যৌবনহারা নদী-নালা। মাঠ-ঘাট, নদী-নালা সবকিছু পানিতে ভরে ওঠে। প্রকৃতিতে এক অপূর্ব সৌন্দর্য বিরাজ করে। সবকিছু চিরসবুজ হয়ে ওঠে।

 

বর্ষাকাল বাংলাদেশে কৃষি ও মৎস্য চাষের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই সময়ে কৃষকরা ধান, পাট, গম ইত্যাদি ফসল রোপণ করে।

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - শরৎকাল

শরৎকাল বাংলাদেশের অন্যতম মনোরম ঋতু। এই সময়ে প্রকৃতি এক অপরূপ রূপ ধারণ করে। আকাশ পরিষ্কার ও নীল হয়ে ওঠে। গাছের পাতা সবুজ থেকে হলুদ হয়ে যায়। প্রকৃতিতে যেন এক নতুন প্রাণের সঞ্চার হয়।

 

শরৎকাল বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের ফুলের সমাহার দেখা যায়। এই সময়ে শিউলি, হাসনাহেনা, জারুল, কামিনী, বেলি ইত্যাদি ফুল ফোটে। ফুলে ফুলে ভরে যায় প্রকৃতি।

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - হেমন্তকাল

হেমন্তকাল বাংলাদেশের অন্যতম সুন্দর ঋতু। এই সময়ে প্রকৃতিতে শীতের আগমনী বার্তা ভেসে আসে। আকাশ পরিষ্কার ও নীল হয়ে ওঠে। গাছের পাতা লাল, হলুদ ও বাদামী রঙ ধারণ করে। প্রকৃতিতে যেন এক নতুন জীবন্ততা দেখা যায়।

 

হেমন্তকাল বাংলাদেশে ফসল কাটার সময়। এই সময়ে কৃষকরা ধান, পাট, গম ইত্যাদি ফসল কাটে। কৃষকের বাড়িতে লেগে যায় নবান্যের উৎসব। নতুন ফসল তোলার উৎসব।

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - শীতকাল

শীতকাল বাংলাদেশের অন্যতম শীতল ঋতু। এই সময়ে আবহাওয়া অত্যন্ত ঠান্ডা থাকে। তাপমাত্রা প্রায় ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে যেতে পারে। এই সময়ে প্রকৃতিতে কুয়াশার চাদর বিছানো থাকে।

 

শীতকাল বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের ফলের সমাহার দেখা যায়। এই সময়ে কমলা, লেবু, আপেল, নাশপাতি, জাম ইত্যাদি ফল পাওয়া যায়।

 

শীতকালে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে, বিশেষকরে রংপুর সমগ্র বিভাগে কনকনে ঠান্ডা আবহাওয়া থাকে। অনেক সময় ঠান্ডা সর্বনিম্ন ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে যায়। দেশের এ অঞ্চলে সবথেকে বেশি ঠান্ডা থাকে। হিমালয়ের একদম কাছাকাছি হওয়ার দরুণ হিমালয়ের হিমবাহ প্রবাহিত হয়। এরপরই আসে রাজশাহী বিভাগ। ঠান্ডার দিক থেকে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে সিলেট। এবং সবথেকে কম ঠান্ডা থাকে দেশের দক্ষিণ অঞ্চলে, বিশেষকরে চট্রগ্রাম বিভাগে।  


তবে বাংলাদেশে শীতকালে তুষাড়পাত হয় না। কারণ তুষাড়পাত হতে গেলে মাইনার তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়। বাংলাদেশে কখনো মাইনাস তাপমাত্রা দেখা যায়নি।

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - বসন্তকাল

বসন্তকাল বাংলাদেশের অন্যতম মনোরম ঋতু। এই সময়ে প্রকৃতি এক নতুন রূপ ধারণ করে। আকাশ পরিষ্কার ও নীল হয়ে ওঠে। গাছের পাতা সবুজ হয়ে ওঠে। প্রকৃতিতে যেন এক নতুন প্রাণের সঞ্চার হয়।

 

বসন্তকাল বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের ফুলের সমাহার দেখা যায়। এই সময়ে গোলাপ, রজনীগন্ধা, মধুমালা, হাসনাহেনা, জারুল ইত্যাদি ফুল ফোটে।

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - বাংলাদেশের ষড়ঋতুর বৈশিষ্ট্য

বাংলাদেশের ষড়ঋতুর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো:

  • বসন্ত ঋতুতে আবহাওয়া হালকা গরম ও মনোরম থাকে। এই সময়ে ফুল ফোটে এবং প্রকৃতি নতুন সাজে সজ্জিত হয়।
  • গ্রীষ্ম ঋতুতে আবহাওয়া গরম ও শুষ্ক থাকে। এই সময়ে প্রচণ্ড রোদ ও ঝড় বৃষ্টি হয়।
  • বর্ষা ঋতুতে আবহাওয়া আর্দ্র ও বৃষ্টিপূর্ণ থাকে। এই সময়ে নদী-নালা, খাল-বিল ও জলাশয়গুলিতে পানি ভরে ওঠে।
  • শরৎ ঋতুতে আবহাওয়া মনোরম ও শীতল থাকে। এই সময়ে ফসল তোলা হয় এবং ফল পাকে।
  • হেমন্ত ঋতুতে আবহাওয়া ঠান্ডা ও শুষ্ক থাকে। এই সময়ে ধান কাটা হয় এবং শীতের আগমন ঘটে।
  • শীত ঋতুতে আবহাওয়া খুব ঠান্ডা থাকে। এই সময়ে তুষারপাতও হতে পারে।

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - বাংলাদেশের ষড়ঋতুর প্রভাব

বাংলাদেশের ষড়ঋতুর প্রভাব বিভিন্ন ক্ষেত্রে লক্ষ্য করা যায়। এই প্রভাবগুলি হলো:

  • কৃষি ক্ষেত্রে: বাংলাদেশের কৃষি ষড়ঋতুর ওপর নির্ভরশীল। বিভিন্ন ঋতুতে বিভিন্ন ফসল চাষ করা হয়।
  • উদ্ভিদ ও প্রাণীজগত: বাংলাদেশের উদ্ভিদ ও প্রাণীজগত ষড়ঋতুর ওপর নির্ভরশীল। বিভিন্ন ঋতুতে বিভিন্ন উদ্ভিদ ও প্রাণী সক্রিয় থাকে।
  • সাংস্কৃতিক জীবন: বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক জীবনে ষড়ঋতুর প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। বিভিন্ন ঋতুতে বিভিন্ন ধরনের উৎসব ও অনুষ্ঠান পালিত হয়।

 

বাংলাদেশের ষড়ঋতু  - উপসংহার

বাংলাদেশের ষড়ঋতু তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। প্রতিটি ঋতুর নিজস্ব বৈশিষ্ট্য ও সৌন্দর্য রয়েছে। গ্রীষ্মের গরমে প্রকৃতি রুক্ষ হয়ে ওঠে। বর্ষায় প্রকৃতি সবুজ-শ্যামল হয়ে ওঠে। শরতে প্রকৃতি রঙিন হয়ে ওঠে। হেমন্তের সোনালি ধানের খেত প্রকৃতিকে মনোরম করে তোলে। শীতের কুয়াশাচ্ছন্ন সকালে প্রকৃতি এক অপূর্ব দৃশ্যের সৃষ্টি করে। বসন্তের ফুলের সৌরভ প্রকৃতিকে মাতাল করে তোলে।

 

ষড়ঋতুর পালাবদল বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। গ্রীষ্মে ফসল কাটা হয়। বর্ষায় ধানের চাষ হয়। শরতে ফসল উৎপাদন হয়। হেমন্তের শেষে ফসল মাঠ থেকে ঘরে তোলা হয়। শীতের শেষে নতুন ফসলের চাষ শুরু হয়। বসন্তের শুরুতে ফুলের চাষ শুরু হয়।

 

ষড়ঋতু বাংলাদেশের সংস্কৃতিতেও গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। বিভিন্ন উৎসব-পার্বণে ঋতুর প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। যেমন, পহেলা বৈশাখ, ঈদুল ফিতর, ঈদুল আজহা, শারদীয় দুর্গাপূজা, কালীপূজা, বৈশাখী মেলা, ঈদগাহের মেলা ইত্যাদি উৎসব-পার্বণে ঋতুর প্রভাব লক্ষ্য করা যায়।

 

ষড়ঋতু বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও সংস্কৃতিকে সমৃদ্ধ করেছে। এটি বাংলাদেশের একটি অনন্য বৈশিষ্ট্য।

 

আরও পড়ুন 

ট্রাভেলার ও ব্যাকপ্যাকারের মাঝে পার্থক্য

বাংলাদেশকে ষড়ঋতুর দেশ বলা হয় কেন

Post a Comment

0Comments

এই পোস্টটি বিষয়ে আপনার যদি কোনো মন্তব্য থাকে তাহলে নিচে কমেন্ট করুণ। অতি দ্রুত রিপ্লাই পাবেন।

Post a Comment (0)

#buttons=(Ok, Go it!) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Check Now
Ok, Go it!